1. admin@dailyoporadhonusondhanltd.net : admin :
শিরোনামঃ
প্রতিবছরের ন্যায় এ বছরও কুরবানীর সমস্ত গোশত গরিব দুঃখী অসহায় মানুষদের মাঝে অকাতরে বিলিয়ে দিলেন গোপালগঞ্জের মুকসুদপুর উপজেলার ননীক্ষীর ইউনিয়নের বনগ্রাম বাজার, জলিরপাড়ের বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও শিক্ষানুরাগী শেখ মোঃ জিন্নাহ।। এবারও চসিকে কোরবানির বর্জ্য পরিস্কার -পরিচ্ছন্নতায় শীর্ষে দক্ষিণ হালিশহর ওয়ার্ড শিবগঞ্জে ভ্যান চালকের ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার হারুন অর রশিদ ঘূর্ণিঝড় রেমালের আঘাতে ক্ষতিগ্রস্ত মংপ্রু মার্মার পরিবারের মানবেতর জীবনযাপন, আয়েরও কোন উৎস নেই ঝিনাইদহ চেক পোস্টে ২৭০ পিস ইয়াবাসহ মাদক ব্যবসায়ী আটক কালাইয়ে শেষ মুহূর্তে জমে উঠেছে পশুর হাট। *মানবিক কার্যক্রমের অংশ হিসেবে আসন্ন পবিত্র ঈদুল আযহা-২০২৪ উপলক্ষে ৫০ টি দুস্থ পরিবারের মাঝে উপহার সামগ্রী বিতরণ করেছে র‍্যাব-৭, চট্টগ্রাম।* এলজিইডি’র বাস্তবায়নে মুকসুদপুরের বিলচান্দা গ্রামের মানুষ শহরের সুবিধা পেতে চলেছে সাগরিকা ও হালিশহর বড়পুল মহেশখাল পাড়স্থ পশুর হাট পরিদর্শনে সিএমপি পুলিশ কমিশনার “সাংবাদিকতা সংক্রান্ত নেতিবাচক লেখাগুলো ফেসবুকে প্রচার বন্ধ হোক”- “সাইদুর রহমান রিমন”। 

তেতুলিয়ায় উপজেলা নির্বাচন চলাকালীন সময়ে সৌন্দর্য বর্ধক বাঁশঝাড় উধাও

  • আপডেট সময়ঃ রবিবার, ২৬ মে, ২০২৪
  • ১২ জন দেখেছেন

মোঃ জাহাঙ্গীর আলম , পঞ্চগড়।। পঞ্চগড়ে উপজেলা পরিষদ নির্বাচন চলাকালীন সময়ে সৌন্দর্য বর্ধক ও দর্শনার্থীদের আকর্ষণ করা বোম্বাই জাতের একটি বাঁশঝাড় সম্পূর্ণ উধাও হয়ে গেছে। জেলার তেতুলিয়া উপজেলার মাগুরা গ্রামে এই চাঞ্চল্যকর ঘটনা ঘটে। এতে বিরূপ প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছে স্থানীয় সাধারণ মানুষসহ দর্শনার্থীদের মনে। বিভিন্ন সূত্রে প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী উপজেলা নির্বাচন চলাকালীন সময়ে সবাই যখন নির্বাচন নিয়ে ব্যস্ত সেই সুযোগে স্থানীয় বাসিন্দা মোঃ রেজাউল ইসলাম ও তার ছেলে মোঃ রানা বাঁশগুলো কর্তন করে বিক্রি করে। স্থানীয়রা জানান, বাইরে থেকে যত পর্যটক তেতুলিয়ায় ঘুরতে আসে তারা এই বাঁশ ঝড়ের কাছে এসে ছবি তুলে। বোম্বাই জাতের এই বাঁশগুলো অন্যান্য বাঁশের তুলনায় মোটা ও উঁচু হওয়ায় সহজে সবাইকে আকৃষ্ট করে। এই বাসগুলো দেখতে দূর দূরান্ত থেকে মানুষ পরিবার পরিজন নিয়ে এখানে ছুটে আসে। পাকা রাস্তার পাশে সরকারি জমির উপর এই বাঁশঝাড়। যে বাঁশগুলো কর্তন করেছে সে খুবই অন্যায় করেছে। সে চাইলে ব্যবহারের জন্য পরিপক্ক কিছু বাঁশ কর্তন করতে পারত। কিন্তু তা না করে পুরো বাঁশঝাড় উধাও করে দিয়েছে। পাশাপাশি অবৈধভাবে টিনের বেড়া দিয়ে সরকারি জায়গা দখল করে নেওয়ার পায়তারা চালাচ্ছে। বাঁশঝাড় কর্তনের সত্যতা স্বীকার করে মোঃ রানা ইসলাম বলেন, বাঁশঝাড় আমরা লাগিয়েছিলাম। ঝড়ের সময় উল্টে যেতে পারে। তাই কেটে বিক্রি করেছি। এ বিষয়ে তেতুলিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার ফজলে রাব্বি বলেন, আমি বিষয়টি শুনেছি। আজকে সারেজমিনে যাব। জায়গাটি এক নং খাস খতিয়ানভুক্ত অথবা জেলা পরিষদ মালিকানাধীন তা খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। এ বিষয়ে জেলা পরিষদ উচ্চমান সহকারী নুরুল আমিন বলেন, আমরা বিষয়টি জানতাম না। দ্রুত খোঁজ খবর নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

বাঁশঝাড়ের যে অবশিষ্ট গড়া অংশগুলো রয়েছে তার চার পাশে প্রাচীর দিয়ে পুনরায় বাঁশঝাড় করার পাশাপাশি যেই ব্যক্তি নির্দয় ভাবে এই বাঁশঝাড় কর্তন করেছে তার বিরুদ্ধে আইনানুক ব্যবস্থা গ্রহণ করার জোর দাবী করেন স্থানীয় সাধারণ মানুষ সহ দর্শনার্থীরা।

শেয়ার করুন

আরো দেখুন......