1. admin@dailyoporadhonusondhanltd.net : admin :
শিরোনামঃ
শ্রীপুর পৌর ৬ নং ওয়ার্ড পূর্ব পাড়া গ্রামে মুরুব্বী,ছাত্র ও যুবকদের সাথে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে শেরপুরের শ্রীবরদীতে শিশু ধর্ষণ চেষ্টার মামলায় ধর্ষক গ্রেপ্তার জনাব আকবর আলী খান, পিপিএম, অফিসার ইনচার্জ, শ্রীপুর থানা। গাজীপুর জেলায় মার্চ/২০২৪ মাসের অপরাধ সভায় শ্রেষ্ট অফিসার নির্বাচিত হন। আমতলীতে ডায়রিয়ার প্রকোপ,হাসপাতালে তীব্র শয্যা সংকট র‌্যাব-৭, চট্টগ্রাম’র অভিযানে ১২ বছরের শিশু আজিম হত্যা মামলার যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামি রনি আক্তার ০৮ বছর পর  গ্রেফতার। শেরপুরের ভুয়া পুলিশ পরিচয়ে বিবাহ, অর্থ আত্মসাৎ প্রদানকারীর সহযোগী গ্রেপ্তার এশিয়ান টেলিভিশনের কুতুবদিয়া প্রতিনিধির উপর হামলা গোবিন্দগঞ্জে মাহবুর হত্যার আসামিদের গ্রেফতার ও ফাঁসির দাবিতে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত বাগেরহাট কল্যাণ সোসাইটি’র ঈদ পূর্ণমিলনী সম্পন্ন জামিন চেয়ে আবারও আবেদনের প্রস্তুতি মিন্নি’র

খুলনার ফুলতলায় ০১শিশু হত্যায় মা ও নানীর স্বীকারোক্তি

  • আপডেট সময়ঃ সোমবার, ১৫ মে, ২০২৩
  • ২৪ জন দেখেছেন

মোঃ ইমানুর রহমান,জেলা প্রতিনিধি, খুলনা, খুলনার ফুলতলায় শিশু মোমিন সরদার (১ বছর ৭ মাস) কে গর্তের পানিতে চুবিয়ে হত্যা ও লাশ গুমের চেষ্টা ঘটনায় মা, বাবা এবং নানীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। নিজ বোন-ভগ্নিপতিকে ফাঁসাতে এ ঘটনা ঘটিয়েছে শিশুর মা। এ ঘটনায় রোববার (১৪ মে) নিহত শিশু মোমিন সরদারের নানা মোঃ আবুল খায়ের (৬২) বাদি হয়ে ফুলতলা থানায় ০৩ ব্যক্তিকে আসামী করে মামলা (১৩) করেন। আসামীরা হলেন শিশু মোমিনের মা সায়রা বেগম (২৯), পিতা মোঃ হারিছ সরদার ওরফে সোহেল (৩৫) এবং নানী মোছাঃ আমেনা বেগম (৪৫)।

 

প্রতিবেশী ও পুলিশ জানায়, আবুল খায়ের গোপালগঞ্জ গোপিনাথপুর এলাকার বাসিন্দা। তিনি  বর্তমানে তারা আলকা গ্রামের মোস্তফা কাজীর ভাড়াটিয়া। তার ৪/৫টি মেয়ে রয়েছে। এরমধ্যে সায়রা বেগমকে বিয়ে করেন মোঃ হারিছ সরদার ওরফে সোহেল । সোহেল শ্বশুর বাড়িতেই থাকতেন। এক পর্যায়ে সোহেল সায়রার আরেক বোন ফাহিমা বেগম ওরফে ফারিয়া (১৫)কেও বিয়ে করে। পরবর্তীতে ফারিয়া সোহেলকে তালাক দিয়ে সুপার জুট মিলের শ্রমিক রাকিব (২৫) কে বিয়ে করে। পরে তাঁরা এখন ডুমুরিয়া এলাকায় বসবাস করছেন।

 

এ ঘটনায় ক্ষিপ্ত হয়ে আসামীরা রাকিব ও ফারিয়াকে ফাঁসাতে নিজ শিশু পুত্র মোমিনকে হত্যার ষড়যন্ত্র করে। পরিকল্পনা অনুযায়ী হারিছ সরদারের উপস্থিতিতে গত শুক্রবার রাত পৌনে ৯টায় সায়েরা ও আমেনা মোমিনকে নিয়ে আলকায় মিজান ভুইয়ার ভাটায় মাটিকাটা গর্তের পানিতে ফেলে হত্যা করে তার লাশ গুমের চেষ্টা করে। পরদিন সন্ধ্যায় খবর পেয়ে থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশ উদ্ধার ও ময়না তদন্তের জন্য মর্গে প্রেরণ করে।

 

ওসি (তদন্ত) সঞ্জয় কুমার কুন্ডু জানান,  গ্রেপ্তার হওয়া সায়রা বোন ও তার প্রেমিককে ফাঁসাতে গিয়ে নিজ পুত্র মোমিনকে হত্যার দায় স্বীকার করেছে। পুলিশ তাদের খুলনার অতিরিক্ত চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেটের নাজমুল কবীরের আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দির জন্য প্রেরণ করে। আদালতে সায়রা বেগম ও আমেনা বেগমের জবানবন্দি গ্রহণের পর  আদালত আসামীদেরকে জেল হাজতে প্রেরণের নির্দেশ দেন।

 

শেয়ার করুন

আরো দেখুন......