1. admin@dailyoporadhonusondhanltd.net : admin :
শিরোনামঃ
শ্রীপুর পৌর ৬ নং ওয়ার্ড পূর্ব পাড়া গ্রামে মুরুব্বী,ছাত্র ও যুবকদের সাথে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে শেরপুরের শ্রীবরদীতে শিশু ধর্ষণ চেষ্টার মামলায় ধর্ষক গ্রেপ্তার জনাব আকবর আলী খান, পিপিএম, অফিসার ইনচার্জ, শ্রীপুর থানা। গাজীপুর জেলায় মার্চ/২০২৪ মাসের অপরাধ সভায় শ্রেষ্ট অফিসার নির্বাচিত হন। আমতলীতে ডায়রিয়ার প্রকোপ,হাসপাতালে তীব্র শয্যা সংকট র‌্যাব-৭, চট্টগ্রাম’র অভিযানে ১২ বছরের শিশু আজিম হত্যা মামলার যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামি রনি আক্তার ০৮ বছর পর  গ্রেফতার। শেরপুরের ভুয়া পুলিশ পরিচয়ে বিবাহ, অর্থ আত্মসাৎ প্রদানকারীর সহযোগী গ্রেপ্তার এশিয়ান টেলিভিশনের কুতুবদিয়া প্রতিনিধির উপর হামলা গোবিন্দগঞ্জে মাহবুর হত্যার আসামিদের গ্রেফতার ও ফাঁসির দাবিতে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত বাগেরহাট কল্যাণ সোসাইটি’র ঈদ পূর্ণমিলনী সম্পন্ন জামিন চেয়ে আবারও আবেদনের প্রস্তুতি মিন্নি’র

পিসিপি ৩৪ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে বাঘাইছড়িতে আলোচনা সভা।

  • আপডেট সময়ঃ শনিবার, ১৩ মে, ২০২৩
  • ৫৭ জন দেখেছেন

রুপন চাকমা বাঘাইছড়ি প্রতিনিধি:- আজ ১৩ মে ২০২৩ রোজ শুক্রবার দুপর ২:০০ ঘটিকায় পিসিপি ৩৪ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীকে সামনে রেখে

রাঙ্গামাটি জেলা শাখার উদ্যোগে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

 

“পূর্ণস্বায়ত্তশাসনই পার্বত্য চট্টগ্রামে একমাত্র সমাধান”শাসকচক্রের খুঁটিতে বাঁধা চিহৃিত গোষ্ঠীসমূহের আন্দালনের প্রহসন রুখে দিতে ছাত্র সমাজ এক হও!এই আহ্বানে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

 

পিসিপি’র দলীয় সংগীত ❝পাহাড়ি ছাত্র ছাত্রী দল❞ গানটি পরিবেশনের  মধ্য দিয়ে জাতীয় পতাকা ও পিসিপি’র দলীয় পতাকা উত্তোলন করেন যথাক্রমে ইউপিডিএফ সমন্বয়ক অক্ষয় চাকমা ও পিসিপি’র জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক তনুময় চাকমা।

 

দলীয় সংগীত পরিবেশনের পর এ যাবতকালের পাহাড়ি জনগণের অধিকার আদায়ের লক্ষে গণতান্ত্রিক আন্দোলনের সকল শহীদের স্মরণের দাঁড়িয়ে এক মিনিট নিরবতা পালন করা হয়।

 

উক্ত আলোচনা সভায় পিসিপি’র রাঙ্গামাটি জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক তনুময় চাকমার সভাপতিত্বে ও জেলা সাংগঠনিক সম্পাদক রুপায়ন চাকমার সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন হিল উইমেন্স ফেডারেশনের জেলা সভাপতি রিমি চাকমা,  গণতান্ত্রিক যুব ফোরামের খাগড়াছড়ি জেলার অর্থ সম্পাদক অনুপম চাকমা,পার্বত্য চট্টগ্রাম নারী সংঘের কেন্দ্রীয় সদস্য  উজ্জ্বলা চাকমা, পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির সহ- সাধারণ সম্পাদক সমর চাকমা ও বাঘাইছড়ি উপজেলা সমন্বয়ক অক্ষয় চাকমা।

 

অক্ষয় চাকমা বলেন, পার্বত্য চট্টগ্রামের লড়াই সংগ্রামের নাম বৃহত্তর পার্বত্য চট্টগ্রাম পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ (পিসিপি)। ছাত্র সমাজের প্রকৃত দায়িত্ব পালন করার জন্য সকলকে সচেতন হতে হবে।পাহাড়ি ছাত্র পরিষদের রাজপথে দুর্বার আন্দোলনের ফলে ৯৭ সালে পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তি স্বাক্ষরে পথ সুগম হয়েছে। নব্বই দশকের ছাত্র আন্দোলনের জোয়ারে দালাল সুবিধাবাদী,  মুখোশবাহিনী মত অপশক্তি বিনাশ হতে বাধ্য হয়েছে। পূর্ণস্বায়ত্তশাসনের সংগ্রাম সফল করার জন্য ছাত্র- যুব- নারী সমাজকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে লড়াই সংগ্রাম জোরদার করতে হবে।

 

সমর চাকমা বলেন,দীর্ঘ লড়াই সংগ্রামের মধ্য দিয়ে পার্বত্য চট্টগ্রামের লড়াকু ছাত্র সংগঠন  পিসিপি’র ৩৪ বছরে  পদার্পন করছে। এই দীর্ঘ পথ কোনকালে সহজ ছিলো না। এই দীর্ঘ পথ পাড়ি দিতে জীবন উৎস্বর্গ করতে হয়েছে অনেক সম্ভাবনাময়ী লড়াকু তরুন ছাত্র নেতাদের।বাঘাইছড়ি এলাকায় পাহাড়ের সংগ্রামের তাৎপর্যপূর্ণ ইতিহাস রয়েছে। লেঃফেরদৌসের গং থেকে পাহাড়ের প্রতিবাদী কন্ঠস্বর বোন কল্পনা চাকমাকে  বাঁচাতে জীবন দিয়ে স্কুল ছাত্র রুপন,সমর,সুকেশ,মনতোষের মত সাহসী ভাইয়েরা। সাজেকে নিজ বাস্তুভিটা রক্ষার্থে  বুদ্ধপুতি লক্ষীবিজয়রা  রাজপথে সেনাদের সম্মূখে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে গিয়ে জীবন দিয়েছেন।এই দানবীয় কবল থেকে মুক্ত হতে ছাত্র-তরুণ সমাজকে ইতিহাসের এ বীরত্বপূর্ণ ঘটনা থেকে জাগরিত হতে হবে।

 

পার্বত্য চট্টগ্রাম নারী সংঘের সদস্য উজ্জ্বলা চাকমা বলেন, পার্বত্য চট্টগ্রামে ছাত্র-যুব-নারী সমাজ ঐক্যবদ্ধ হলে অধিকার অর্জিত হবে। তাই শাসকগোষ্ঠী ছলে,বলে, কৌশলে ঐক্যকে বিনষ্ট করতে চায়। ছাত্র সমাজকে জাতীয় মুক্তির আন্দোলনে সামিল হতে হবে। ছাত্র সমাজই আন্দোলনের ভবিষ্যৎ।

 

যুব নেতা অনুপম চাকমা বলেন, পার্বত্য চট্টগ্রামের ইতিহাসে পাহাড়ি ছাত্র পরিষদের আন্দোলনে উদ্বুদ্ধ হয়ে যুব সমাজকেও এগিয়ে আসতে হবে। লেজুর, সুবিধাবাদী চক্রের সাথে সামিল না হয়ে জুম্ম জনগণের ন্যায্য দাবি আদায়ের লড়াইয়ে সামিল হতে হবে।

 

হিল উইমেন্স ফেডারেশনের নেত্রী রিমি চাকমা বলেন,

সদ্য  স্বাধীন দেশে শেখ মুজিবুর রহমান বাঙ্গালি বানানোর হুমকি দিয়েছিলেন। কয়েক দশকের ব্যবধানে তার কন্যা শেখ হাসিনা পঞ্চদশ সংশোধনীর মাধ্যমে পার্বত্য চট্টগ্রামে বসাবাসকারী জাতিসত্তাদের সাংবিধানিকভাবে বাঙ্গালি বানিয়েছেন। এই দেশ আমাদের জাতীয়তা মুছে দিয়ে বাঙ্গালি বানিয়ে ও কান্ত হয় নি। অব্যাহত রেখেছে নিজ ভূমি থেকে উচ্ছেদের নীলনক্সাসহ, নারী ধর্ষণ, বিচার বর্হিভুত হত্যাকান্ডও।

আমাদের ন্যায্য অধিকার অর্জন করার জন্য নারীদেরও লড়াই সংগ্রামে সামিল হতে হবে।

সভাপতির বক্তবে তনুময় চাকমা বলেন,

শিক্ষা অর্জনকে আমরা যদি শুধুই আয়ের উৎস মনে করি তাহলে শিক্ষাকে বিকৃত করা ছাড়া আর কিছুই নয়। আমরা যে ইতিহাসে লড়াই সংগ্রামে ইতিহাস পাঠ করি তা শুধু সার্টিফিকেট অর্জনের জন্য নয়, সেই ইতিহাস থেকে শিক্ষা নিয়ে বাস্তব জীবনে লড়াই চালিয়ে যেতে হবে। যারা  লড়াই সংগ্রামে রাজনীতিতে নিউট্রাল থাকেন, তারা অন্যায় দমন- পীড়ন মেনে নেওয়ার সামিল। তাই ছাত্র সমাজকে লড়াই সংগ্রামে যুক্ত হয়ে ন্যায্য অধিকার অর্জনে সামিল হতে হবে।

শেয়ার করুন

আরো দেখুন......