1. admin@dailyoporadhonusondhanltd.net : admin :
শিরোনামঃ
শ্রীপুর পৌর ৬ নং ওয়ার্ড পূর্ব পাড়া গ্রামে মুরুব্বী,ছাত্র ও যুবকদের সাথে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে শেরপুরের শ্রীবরদীতে শিশু ধর্ষণ চেষ্টার মামলায় ধর্ষক গ্রেপ্তার জনাব আকবর আলী খান, পিপিএম, অফিসার ইনচার্জ, শ্রীপুর থানা। গাজীপুর জেলায় মার্চ/২০২৪ মাসের অপরাধ সভায় শ্রেষ্ট অফিসার নির্বাচিত হন। আমতলীতে ডায়রিয়ার প্রকোপ,হাসপাতালে তীব্র শয্যা সংকট র‌্যাব-৭, চট্টগ্রাম’র অভিযানে ১২ বছরের শিশু আজিম হত্যা মামলার যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামি রনি আক্তার ০৮ বছর পর  গ্রেফতার। শেরপুরের ভুয়া পুলিশ পরিচয়ে বিবাহ, অর্থ আত্মসাৎ প্রদানকারীর সহযোগী গ্রেপ্তার এশিয়ান টেলিভিশনের কুতুবদিয়া প্রতিনিধির উপর হামলা গোবিন্দগঞ্জে মাহবুর হত্যার আসামিদের গ্রেফতার ও ফাঁসির দাবিতে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত বাগেরহাট কল্যাণ সোসাইটি’র ঈদ পূর্ণমিলনী সম্পন্ন জামিন চেয়ে আবারও আবেদনের প্রস্তুতি মিন্নি’র

অভয়নগরে জোর পূর্বক জমি দখলের চেষ্ঠা : বাধা দেওয়ায় দেশিয় অস্ত্র দিয়ে মাথায় আঘাত : আহত ১ : থানায় মামলা দায়ের

  • আপডেট সময়ঃ মঙ্গলবার, ৯ মে, ২০২৩
  • ৩৬ জন দেখেছেন

বিভাগীয় প্রধান খুলনা :- অভয়নগরে জোর পূর্বক জমি দখলের চেষ্ঠা বাধা দেওয়ায় দেশিয় অস্ত্র দিয়ে মাথায় আঘাত করা হয়েছে। এতে আহত হয়েছেন এক ব্যক্তি। এঘটনায় থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। গ্রেফতার হয়েছেন দুই জন। ঘটনাটি ঘটেছে যশোর জেলার অভয়নগর উপজেলা তালতলা নামক স্থানে । গত ৫ ই মে বেলা আনুমানিক ১০ টার দিকে বিবাদী গন একই গ্রামের মৃত কানাই শেখের ছেলে হারুন শেখ গং ঘটনাটি ঘটিয়েছেন। মামলা সূত্রে জানা গেছে, তালতলা বাজার চত্তরে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জেরে মো.ফারুক হোসেন সরদার(৪৮) ও খালাতো ভাই আয়নাল জমাদ্দারের (৫২) ওপর হামলা রামদা, লাটিশোটা, রড নিয়ে এলাকার ভূমিদস্যু হারুন শেখ, তার ছেলে ইমন শেখ, তার ভাই আকুবব্বার শেখ, তার ছেলে শফিয়ার শেখ গং এলোপাথাড়ি ভাবে কুপিয়ে মারপিট করে পালিয়ে যায়। এ ঘটনা আয়নাল জমাদ্দার বাদী হয়ে হারুণ শেখ গংয়ের নামে থানায় মামলা দায়ের করেন। মামলা নং ১১ । তারিখ ৫/৫/২৩। সূত্র জানায়, অভয়নগরে তালতলা বাজার এলাকার সামছুর রহমান সরদার তার পিতা মৃত দেলবর সরদারে রেকার্ডের জমি মালিকানায় ৭৭১ খতিয়ানে সাবেক দাগ ৯৬ হাল দাগ ৯০ আরএস খতিয়ান ৮৫৬ মোট জমি পরিমান ৬১শতক ভোগ দখল করে খেয়ে আসছেন। তিনি মারা যাওয়ার পর তার একমাত্র ছেলে সামছুর রহমান সরদারের নামে ওয়ারেশ সূত্রে ওই জমির মালিকায় চলে আসে। এরপর সামছুর রহমান সরদার তার ৫ ছেলেদের সাথে সম্মনয় করে সেঝো ছেলে মো. ফারুক হোসেন সরদারের নামে ওই সম্পত্তি লিখে দেন। যার দলিল নং ৯০২। মৌজা একতারপুর। ওই সম্পত্তি এক সময় স্থানীয় কানাই শেখ দেলবর সরদারে জমি চাষ করে খেত। এরপর সড়ক দূর্ঘটনায় দেলবর সরদার মারা গেলে কানাই শেখ সুযোগ সন্ধানে সু কৌশলে এলাকার আকাম সরদারকে মালিক সাজিয়ে জাল দলিল করে নেন। কানাই শেখ তখন তার নামে ওই সম্পত্তির সাড়ে ৪৪শতক ভূমি অফিসের লোকজনকে ম্যানেজ করে মাঠ জরিপ তথ্য গোপন রেখে তার নামে রের্কড করেন। কয়েক বছর পর কানাই শেখ মারা যান। এসময় সামছুর রহমান সরদার টের পেয়ে বিজ্ঞ আদালতের সরানাপন্ন হন। তখন ওই সম্পত্তির উপর সামছুর রহমান সরদার এক নং বাদী ও তার ছেলে মো. ফারুক হোসেন সরদার ২নং বাদী হয়ে দেয়ানী মামলা দায়ের করেন। যার নং ৩৬। এ মামলায় বিনা প্রতিদন্দীতায় কেস খারিজ হয়ে যায়। ২নং  বাদী মো. ফারুক হোসেন সরদারে মামলা চলমান রয়েছে। যার নং ৬৭। তারিখ ২০০৮। ফারুক হোসেন সরদার আবার ওই সম্পত্তির উপর রের্কড সংশোধনের জন্য এলএসটি কোর্টে মামলা দায়ের করেন। মামলা নং ৩০৯৮। তারিখ ২০১৭। পরে যশোর ল্যান্ড সার্ভে ট্রাইবুনাল আদালত মো. ফারুক হোসেনের অনুকুলে রায় প্রাপ্ত হয়। এরপর বিবাদী মৃত কানাইয়ের ওয়ারেশ হারুন গং এলএসটি কোর্টে রায়ের পর আপিল করেন। যার মামলা নং ৩ । তারিখ ২০২২। এ মামলায় মো. ফারুক হোসেন সরদার পক্ষে আদালত রায় বহাল রাখেন। তাদের বৈধ কোন কাগজ পত্র না থাক্য়া কেস টি বিজ্ঞ আদালত খারিজ করে দেন। মৃত কানাই শেখের ছেলে হারুন শেখ গং বাদী হয়ে ওই ৬১ শতক জমির উপর বিবাদী মো. ফারুক হোসেনের নামে যশোর বিজ্ঞ অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে একটি ফোজদারী ১৪৪ ধারা মামলা দায়ের করেন। আদালত অভয়নগর থানাকে সরেজমিনে তদন্ত করে প্রতিবেদন জমা দেওয়ার আদেশ দেন। এসময় অভয়নগর থানা তদন্ত সাপেক্ষে একটি প্রতিবেদন জমা দেন বিবাদী মো.ফারুক হোসেনের পক্ষে। এরপর থেকে ফারুক হোসেন ওই জমি ভোগ দখল করে খেয়ে আসছেন। পরে হারুন গং এলএসটি কোর্ট থেকে নকল তুলে হাই কোর্টে সরানাপন্ন হন। সে মামলায় মো. ফারুক হোসেন সরদারের পক্ষে আদালত রুল ঘোষনা করেন। এবং তাদেরকে আদালত কারণদর্শানো নোটিশ দেন। তারা কারণদর্শানো নোটিশের জবাব না দিয়ে স্ট্রে করেন। তারপর তারা আদালতে ২০২৩ সালে সময় চেয়ে আবেদন জমা দেন। বিজ্ঞ আদালত তাদের সময় বৃদ্ধি করেন। এবং আদালত উভয় পক্ষকে নির্দেশ দেন যে যে অবস্থানে আছেন সে সে ওই অবস্থানে থাকবেন। কিন্তু তারা কোর্টে নিষেদাজ্ঞা অমান্য করে বিবাদীকে বিভিন্ন প্রকার ভয় ভীতি, হত্যা ও হুমকি প্রদান করে আসছেন। হারুল শেখ গং বিবাদীদের বাজারে দেখা হলে হত্যার হুমকি প্রদান করেন। চলতি মাসের ৫/৫/২৩ সালে শুক্রবার বেলা ১০ টার সময়

তালতলা বাজার চত্তরে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জেরে মো.ফারুক হোসেন সরদার ও খালাতো ভাই আয়নাল জমাদ্দারের উপর হামলা চালাই। এ ঘটনা আয়নাল জমাদ্দার বাদী হয়ে হারুণ শেখ গংয়ের নামে থানায় মামলা দায়ের করেন। মামলা নং ১১। তারিখ ৫/৫/২৩। এ বিষয় মো.ফারুক হোসেন সরদার বলে, ভ‚মি সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে হারুন শেখ গং আমার জমি দখল করার  চেষ্ঠা করে আসছেন। এ বিষয়ে মামলা চলছে। তারা তা না মেনে আমাদের উপর অর্তকিত হামলা করে আমাদের জখম করেছেন। হাইকোর্ট থেকে জমির উপর স্ট্রে ঘোষণা করেছেন। আমার জমির উপর হারুন শেখ গং লোকজন নিয়ে ঘর তৈরি করছিলো । আমি দেখে বাধা দিতে গেলে দেশিও অস্ত্র নিয়ে আক্রমণ করেন। এতে আ

শেয়ার করুন

আরো দেখুন......