1. admin@dailyoporadhonusondhanltd.net : admin :
শিরোনামঃ
প্রতিবছরের ন্যায় এ বছরও কুরবানীর সমস্ত গোশত গরিব দুঃখী অসহায় মানুষদের মাঝে অকাতরে বিলিয়ে দিলেন গোপালগঞ্জের মুকসুদপুর উপজেলার ননীক্ষীর ইউনিয়নের বনগ্রাম বাজার, জলিরপাড়ের বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও শিক্ষানুরাগী শেখ মোঃ জিন্নাহ।। এবারও চসিকে কোরবানির বর্জ্য পরিস্কার -পরিচ্ছন্নতায় শীর্ষে দক্ষিণ হালিশহর ওয়ার্ড শিবগঞ্জে ভ্যান চালকের ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার হারুন অর রশিদ ঘূর্ণিঝড় রেমালের আঘাতে ক্ষতিগ্রস্ত মংপ্রু মার্মার পরিবারের মানবেতর জীবনযাপন, আয়েরও কোন উৎস নেই ঝিনাইদহ চেক পোস্টে ২৭০ পিস ইয়াবাসহ মাদক ব্যবসায়ী আটক কালাইয়ে শেষ মুহূর্তে জমে উঠেছে পশুর হাট। *মানবিক কার্যক্রমের অংশ হিসেবে আসন্ন পবিত্র ঈদুল আযহা-২০২৪ উপলক্ষে ৫০ টি দুস্থ পরিবারের মাঝে উপহার সামগ্রী বিতরণ করেছে র‍্যাব-৭, চট্টগ্রাম।* এলজিইডি’র বাস্তবায়নে মুকসুদপুরের বিলচান্দা গ্রামের মানুষ শহরের সুবিধা পেতে চলেছে সাগরিকা ও হালিশহর বড়পুল মহেশখাল পাড়স্থ পশুর হাট পরিদর্শনে সিএমপি পুলিশ কমিশনার “সাংবাদিকতা সংক্রান্ত নেতিবাচক লেখাগুলো ফেসবুকে প্রচার বন্ধ হোক”- “সাইদুর রহমান রিমন”। 

র‍্যাব-৭’র অভিযানে গ্রেফতারী পরোয়ানাভুক্ত পলাতক এবং ১০ মামলার আসামী বাছনী প্রকাশ বাছইন্যা আটক-০১

  • আপডেট সময়ঃ মঙ্গলবার, ২১ ফেব্রুয়ারী, ২০২৩
  • ৩৪ জন দেখেছেন

নিজস্ব প্রতিবেদক:-“বাংলাদেশ আমার অহংকারচ্ এই স্লোগান নিয়ে র‍্যাপিড এ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‍্যাব) প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে বিভিন্ন ধরণের অপরাধীদের গ্রেফতারের ক্ষেত্রে জোরালো ভূমিকা পালন করে আসছে। র‍্যাব সৃষ্টিকাল থেকে সমাজের বিভিন্ন অপরাধ এর উৎস উদঘাটন, অপরাধীদের গ্রেফতারসহ আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতির সার্বিক উন্নয়নে নিরলসভাবে কাজ করে চলেছে। র‍্যাব-৭, চট্টগ্রাম অস্ত্রধারী সস্ত্রাসী, ডাকাত, ধর্ষক, দুর্ধষ চাঁদাবাজ, সন্ত্রাসী, খুনি, ছিনতাইকারী, অপহরণকারী ও প্রতারকদের গ্রেফতার এবং বিপুল পরিমাণ অবৈধ অস্ত্র, গোলাবারুদ ও মাদক উদ্ধারের ক্ষেত্রে জিরো টলারেন্স নীতি অবলম্বন করায় সাধারণ জনগনের মনে আস্থা ও বিশ্বাস অর্জন করতে সক্ষম হয়েছে।

 

গত ০৫ অক্টোবর ২০০৩ইং তারিখ বিকাল আনুমানিক ১৬০০ ঘটিকায় ভিকটিম মোঃ নাসের আহমেদ রানা তার ফুফাত বোনের বাড়িতে বেড়াতে যান। ঐদিন সন্ধ্যা আনুমানিক ১৯০০ ঘটিকায় নাসের আহমেদ তার ফুফাত বোনের জামাতা সহ বাড়ি ফেরার জন্য রাস্তায় গাড়ির জন্য অপেক্ষা করছিলেন। এসময় আসামী বাছনী এবং তার আরও কয়েকজন সহযোগী তাদেরকে অস্ত্রের মুখে জোরপূর্বক অপহরণ করে একটি প্রাইভেটকারযোগে অজ্ঞাত স্থানে নিয়ে যায়। পরবর্তীতে ভিকটিম নাসের আহমেদ এর লাশ পাওয়া গেলে ৫ জনকে আসামি করে রাউজান থানায় একটি মামলা রুজু হয় যার মামলা নং ০৩ তাং-০৬ অক্টোবর ২০০৩ ধারা- ৩৬৪/৩০২/৩৪ পেনাল কোড। মামলা রুজুর পর হতে আসামী বাছনী @বাছইন্যা আইন শৃংখলা বাহিনীর নিকট হতে গ্রেফতার এড়াতে পলাতক থাকায় বিজ্ঞ আদালত তার বিরুদ্ধে গ্রেফতারী পরোয়ানা জারী করেন।

 

এছাড়াও গত ৩০ ডিসেম্বর ১৯৯৭ ইং তারিখে আসামী বাছনী জনৈক ভিকটিমের ঢুকে পুলিশ ধাওয়া করে বলে একটু আশ্রয় চায়। পরবতর্ী বাছনী ভিকটিমকে পুলিশ আসছে কিনা একটু দেখতে বলে। ভিকটিম বাড়ির বাহিরে গেলে আসামী বাছনী তার সহযোগীদের সহায়তায় টেক্সিতে করে ভিকটিমকে অপহরণের চেষ্টা করে। পরবতর্ীতে ভিকটিমের চিৎকারে আশেপাশের লোকজন ছুটে এসে ভিকটিমকে উদ্ধার করে। এ ঘটনায় ভিকটিম চট্টগ্রাম জেলার রাউজান থানায় অপহরণকারীদের বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করেন যার মামলা নং ৮(১২)৯৭, ধারা- ৩৬৩/৩৮৭ পেনাল কোড। পরবর্তীতে উক্ত মামলা রুজু হলে বিজ্ঞ আদালত বিচার কার্য পরিচালনা শেষে গত ১২ অক্টোবর ২০১১ আসামী বাছনীকে ০৭ বছর সশ্রম কারাদন্ড এবং পাঁচ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরো ছয় মাসের সশ্রম কারাদন্ড প্রদান করেন এবং আসামী বাছুত এর বিরুদ্ধে গ্রেফতারী পরোয়ানা জারী করেন।

 

র‍্যাব-৭, চট্টগ্রাম বর্ণিত অপহরন মামলার মূলহোতা ও অপহরন পূর্বক হত্যা মামলার দীর্ঘদিন ধরে পলাতক গ্রেফতারী পরোয়ানাভুক্ত আসামীকে গ্রেফতারের লক্ষ্যে গোয়েন্দা নজরধারী অব্যাহত রাখে। নজরধারীর এক পর্যায়ে র‍্যাব-৭, চট্টগ্রাম জানতে পারে যে, আসামী বাছনী @বাছইন্যা  চট্টগ্রাম জেলার রাউজান থানাধীন নোয়াপাড়া চৌধুরীর হাট এলাকায় অবস্থান করছে। উক্ত তথ্যের ভিত্তিতে র‍্যাব-৭, চট্টগ্রামের একটি আভিযানিক দল গত ২০ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ইং তারিখ ১৬১০ ঘটিকায় বর্ণিত স্থানে অভিযান পরিচালনা করে আসামী বাছনী @বাচুইন্যা(৪৫), পিতা-জেবর মুল্লুক, সাং-সামিদার কেয়াং, থানা-রাউজান, জেলা-চট্রগ্রামকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়। পরবর্তীতে উপস্থিত সাক্ষীদের সম্মুখে আটককৃত আসামীকে জিজ্ঞাসাবাদে বর্ণিত মামলার ওয়ারেন্টভুক্ত পলাতক আসামী মর্মে স্বীকার করে। উল্লেখ্য যে, উক্ত আসামি তার গ্রেফতার এড়ানোর জন্য কৌশলে বিদেশে পালিয়ে যাওয়ার সময় আটক হয়। গ্রেফতারকালীন সময় তার নিকট বিদেশ যাওয়ার পাসপোর্ট ও বিমানের টিকেট সহ তাকে আটক করা হয়।

 

উল্লেখ্য, সিডিএমএস পর্যালোচনা করে গ্রেফতারকৃত আসামীর বিরুদ্ধে চট্টগ্রাম জেলার রাউজান ও পাচঁলাইশ থানায় হত্যা, অপহরণ এবং বিভিন্ন সন্ত্রাসী কর্মকান্ডসহ সর্বমোট ১০টি মামলা পাওয়া যায়।

 

গ্রেফতারকৃত আসামীর সংক্রান্তে পরবর্তী আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহনের নিমিত্তে সংশ্লিষ্ট থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।

 

শেয়ার করুন

আরো দেখুন......