1. admin@dailyoporadhonusondhanltd.net : admin :
শিরোনামঃ
নোয়াখালী জেলার সুধারাম থানার চাঞ্চল্যকর হত্যা মামলার এজাহারনামীয় পলাতক আসামি মোঃ রায়হান’কে চট্টগ্রামের পটিয়া থেকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-৭ ও র‌্যাব-১১। সীতাকুণ্ডে মহাসড়ক অবরোধ করে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ যানজট সৈনিক কল্যাণ সংস্থা Uno নিকট খেজুরের বীজ প্রদান বাংলাদেশ গ্রাম ডাক্তার কল্যাণ সমিতি চট্টগ্রাম জেলা শাখা কমিটির অভিষেক অনুষ্ঠান ও মাস ব‍্যাপি সাংগঠনিক কর্মসূচি 2024 সম্পন্ন। বরগুনার তালতলীতে অবৈধ চোলাই মদসহ আটক ১ জন। “শিক্ষায় কিন্ডারগার্টেন শিক্ষকদের আন্তরিকতা প্রশংসনীয়”– “শিক্ষায় কিন্ডারগার্টেন শিক্ষকদের আন্তরিকতা প্রশংসনীয়” শেরপুরের ঝিনাইগাতী তিনজন হোটেল মালিককে ৬ হাজার টাকা জরিমানা ২ কেজি গাঁজা সহ এক মাদক ব্যবসায়ী বরগুনা ডিবি পুলিশের হাতে আটক।

নবজাতককে হাসপাতালে রেখে উধাও অভিভাবক

  • আপডেট সময়ঃ বুধবার, ৩ জুলাই, ২০২৪
  • ১৯ জন দেখেছেন

মোহাম্মদ মিলন আকতার,রংপুর বিভাগীয় ব্যুরো প্রধান:ঠাকুরগাঁওয়ে জেনারেল হাসপাতালে একটি মেয়ে নবজাতক শিশুকে ভর্তি করার প্রায় ২ ঘণ্টার মধ্যেই অভিভাবক।

মঙ্গলবার (২ জুলাই) রাত পর্যন্ত শিশুটির অভিভাবকের কোনো সন্ধান পায়নি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষসহ জেলা প্রশাসন।

এরআগে সোমবার সকাল ৮ টায় ঠাকুরগাঁও ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে শিশু ওয়ার্ডে নবজাতক মেয়েটিকে ভর্তি করান এক তরুণ নারী। হাসপাতালে শিশুটিকে ভর্তি করানোর কাগজে ঠিকানা উল্লেখ করা হয়েছে, পঞ্চগড় জেলার বোদা উপজেলার ময়দানদিঘী। আর অভিভাবকের নাম দেওয়া হয়েছে জয় এবং বাচ্চার নাম লেখা রয়েছে বেবি।

হাসপাতালের শিশু ওয়ার্ডে কর্মরত এক সেবিকার (নার্স) এর দেওয়া তথ্য মতে, গত সোমবার (১ জুলাই) সকাল ৮টায় শিশুটিকে নিয়ে এক তরুণ নারী হাসপাতালে আসেন ও ভর্তি করান। সকাল ১০টার পর থেকে শিশুটির পাশে তাকে আর দেখা যায়নি। পরবর্তীতে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ খোঁজখবর নিয়েও ওই বাচ্চার কোনো অভিভাবক খুঁজে পাননি। বিষয়টি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ পুলিশকে জানালে পুলিশ সরকারি শিশু পরিবারকে জানায়।

বিষয়টি নিশ্চিত করে এ সম্পর্কে হাসপাতালের আবাসিক মেডিক্যাল অফিসার (আরএমও) ডা. মো. রকিবুল আলম (চয়ন) বলেন, হাসপাতালের শিশু ওয়ার্ডে একটি মেয়ে বাচ্চাকে কে বা কারা রেখে পালিয়ে গেছেন। মঙ্গলবার সন্ধ্যা পর্যন্ত তার খোঁজ নিতে কেউ আসেননি। বাচ্চাটি বর্তমানে সুস্থ আছে ও তাকে শিশু ওয়ার্ডের হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের তত্ত্বাবধানে রাখা হয়েছে ।ঠাকুরগাঁওয়ের জেলা প্রশাসক মো. মাহবুবুর রহমান বলেন, বিষয়টি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ আমাদেরকে জানায়। আমরা ঠাকুরগাঁও সরকারি শিশু পরিবারকে ইতোমধ্যে জানিয়েছি।

এই মুহূর্তে শিশুটির একজন অভিভাবক দরকার। তাই আমরা তাকে কারো কাছে দিতে চাই। এরই মধ্যে কয়েকজন কাগজসহ আবেদন করেছেন। ঠাকুরগাঁও সরকারি শিশু পরিবারসহ পরবর্তীতে আমরা কাগজ যাচাই-বাছাই করে যাকে দেওয়ার মতো যোগ্য মনে হয় তাকে আমরা বাচ্চাটা দিব।

শিশুটির অভিভাবক খোঁজার বিষয়ে তিনি বলেন, হাসপাতালে ভর্তির কাগজে উল্লেখিত ঠিকানায় আমরা লোক পাঠিয়েছিলাম কিন্তু সেই ঠিকানায় খোঁজ খবর নিয়েও শিশুটির অভিভাবককে পাওয়া যায়নি।

শেয়ার করুন

আরো দেখুন......