1. admin@dailyoporadhonusondhanltd.net : admin :
শিরোনামঃ
প্রতিবছরের ন্যায় এ বছরও কুরবানীর সমস্ত গোশত গরিব দুঃখী অসহায় মানুষদের মাঝে অকাতরে বিলিয়ে দিলেন গোপালগঞ্জের মুকসুদপুর উপজেলার ননীক্ষীর ইউনিয়নের বনগ্রাম বাজার, জলিরপাড়ের বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও শিক্ষানুরাগী শেখ মোঃ জিন্নাহ।। এবারও চসিকে কোরবানির বর্জ্য পরিস্কার -পরিচ্ছন্নতায় শীর্ষে দক্ষিণ হালিশহর ওয়ার্ড শিবগঞ্জে ভ্যান চালকের ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার হারুন অর রশিদ ঘূর্ণিঝড় রেমালের আঘাতে ক্ষতিগ্রস্ত মংপ্রু মার্মার পরিবারের মানবেতর জীবনযাপন, আয়েরও কোন উৎস নেই ঝিনাইদহ চেক পোস্টে ২৭০ পিস ইয়াবাসহ মাদক ব্যবসায়ী আটক কালাইয়ে শেষ মুহূর্তে জমে উঠেছে পশুর হাট। *মানবিক কার্যক্রমের অংশ হিসেবে আসন্ন পবিত্র ঈদুল আযহা-২০২৪ উপলক্ষে ৫০ টি দুস্থ পরিবারের মাঝে উপহার সামগ্রী বিতরণ করেছে র‍্যাব-৭, চট্টগ্রাম।* এলজিইডি’র বাস্তবায়নে মুকসুদপুরের বিলচান্দা গ্রামের মানুষ শহরের সুবিধা পেতে চলেছে সাগরিকা ও হালিশহর বড়পুল মহেশখাল পাড়স্থ পশুর হাট পরিদর্শনে সিএমপি পুলিশ কমিশনার “সাংবাদিকতা সংক্রান্ত নেতিবাচক লেখাগুলো ফেসবুকে প্রচার বন্ধ হোক”- “সাইদুর রহমান রিমন”। 

মাদারীপুর জেলার রাজৈরে ভবনসহ জায়গা কিনে বিপদে প্রবাসী:সৌদি থাকা অবস্থায় ৩ মামলার শিকার প্রবাসীর সংবাদ সম্মেলন

  • আপডেট সময়ঃ শনিবার, ৮ জুন, ২০২৪
  • ১১ জন দেখেছেন

মাদারীপুর জেলার রাজৈরে ভবনসহ জায়গা

ফকির মিরাজ আলী শেখ,বিশেষ প্রতিনিধি:

মাদারীপুরের রাজৈরে ভবনসহ জায়গা কিনে মহাবিপদে পড়েছেন প্রবাসী মোহাম্মদ আলী শেখ(৪৫)। তিনি সৌদি অবস্থানরত সময় তার বিরুদ্ধে ৩টি সহ মোট ৪টি মামলা করেছে জায়গা বিক্রেতা হান্নান লস্করের ভাই ও স্বজনেরা। এরই প্রতিবাদে শনিবার (৮ জুন) দুপুরে উপজেলার টেকেরহাট বন্দরে রাজৈর উপজেলা প্রেসক্লাব স্থায়ী কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করেছেন ওই সৌদি প্রবাসী। তিনি উপজেলার কদমবাড়ি ইউনিয়নের মহিষমারি গ্রামের মোস্তফা শেখের ছেলে।

সংবাদ সম্মেলনে সৌদি প্রবাসী মোহাম্মদ আলী শেখ বলেন, আমি উপজেলার মহিষমারি গ্রামে আমার প্রতিবেশী হান্নান লস্করের কাছ থেকে ২৩ লাখ টাকা দিয়ে একতলা একটি ভবন সহ ১০ শতাংশ জায়গা কিনেছি। কিন্তু আমাকে নোটারী করে বায়নাপত্র দিয়ে প্রথমে ১০ লাখ ও পরে স্ত্রীকে ডাক্তার দেখানোর কথা বলে আরো ১০ লাখ টাকা নিয়ে পরিবারসহ আমেরিকা চলে গেছে হান্নান। এখন আমাকে দলিলও দেয় না আর জায়গাও বুঝিয়ে দিচ্ছে না। উল্টো আমাদের নামে সন্ত্রসী হামলা ও চাঁদাবাজিসহ বিভিন্ন ধারায় ৪টি মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করছে। এরমধ্যে ৩টি মামলা দায়েরের সময় আমি সৌদি আরব ছিলাম। আমি দেশে আসার পর ঘর পুড়িয়ে আরেকটি মামলা করেছে।

এসময় তার ছোট বোন জামাই মাসুদ মিনা বলেন, আমি থাকি টেকেরহাট পূর্ব স্বরমঙ্গল গ্রামে। মহিষমারি আমার শশুরবাড়ি, মোহাম্মদ আলী আমার সোমন্দি (স্ত্রীর বড় ভাই)। এই সূত্র ধরে কোন ঝামেলা হলেই আমাকে মামলায় দেওয়া হয়। অথচ যারা মামলা করে তারা আমাকে চেনে না আর আমিও তাদেরকে চিনি না। আমি সরকারের কাছে এসব মিথ্যা মামলাকারীদের সুষ্ঠু বিচার দাবি করছি।

সংবাদ সম্মেলনে সৌদি প্রবাসী মোহাম্মদ আলী শেখের বাবা মোস্তফা শেখ উপস্থিত ছিলেন।

শেয়ার করুন

আরো দেখুন......