1. admin@dailyoporadhonusondhanltd.net : admin :
শিরোনামঃ
শ্রীপুর পৌর ৬ নং ওয়ার্ড পূর্ব পাড়া গ্রামে মুরুব্বী,ছাত্র ও যুবকদের সাথে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে শেরপুরের শ্রীবরদীতে শিশু ধর্ষণ চেষ্টার মামলায় ধর্ষক গ্রেপ্তার জনাব আকবর আলী খান, পিপিএম, অফিসার ইনচার্জ, শ্রীপুর থানা। গাজীপুর জেলায় মার্চ/২০২৪ মাসের অপরাধ সভায় শ্রেষ্ট অফিসার নির্বাচিত হন। আমতলীতে ডায়রিয়ার প্রকোপ,হাসপাতালে তীব্র শয্যা সংকট র‌্যাব-৭, চট্টগ্রাম’র অভিযানে ১২ বছরের শিশু আজিম হত্যা মামলার যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামি রনি আক্তার ০৮ বছর পর  গ্রেফতার। শেরপুরের ভুয়া পুলিশ পরিচয়ে বিবাহ, অর্থ আত্মসাৎ প্রদানকারীর সহযোগী গ্রেপ্তার এশিয়ান টেলিভিশনের কুতুবদিয়া প্রতিনিধির উপর হামলা গোবিন্দগঞ্জে মাহবুর হত্যার আসামিদের গ্রেফতার ও ফাঁসির দাবিতে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত বাগেরহাট কল্যাণ সোসাইটি’র ঈদ পূর্ণমিলনী সম্পন্ন জামিন চেয়ে আবারও আবেদনের প্রস্তুতি মিন্নি’র

শ্রম অধিদপ্তরের পিয়ন মোফাজ্জল হোসেন দুর্নীতি ও প্রতারণা মামলায় গ্রেফতার..

  • আপডেট সময়ঃ মঙ্গলবার, ১৪ নভেম্বর, ২০২৩
  • ১২১ জন দেখেছেন

আশরাফুল আলম সরকার,বিশেষ প্রতিনিধি:-

শ্রম অধিদপ্তর অফিসের পিয়ন মোফাজ্জল হোসেন আসে আদালতে জামিন দিতে। গত ৮ ই অক্টোবর ময়মনসিংহ চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে দূর্নীতি এবং প্রতারণার অভিযোগে আসামি তিনি আসে জামিন নিতে শ্রম অধিদপ্তর অফিসের পিয়ন মোফাজ্জল।

পরবর্তী শুনানির তারিখ ছিলো আজ ১৪ নভেম্বর মঙ্গলবার। শুনানি দিতে আসে সঠিক কোন তথ্য দলিল বা কাগজ পত্র উপস্থাপন না করতে পারায় আজ তার জামিন বাতিল করে তাকে জেলে আটক করার নির্দেশ দেয় চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্টেট আদালত ।এবং তার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ সঠিক প্রমাণিত হয়। এখন সে আদালতে আটক আছে। এ সকল বিভিন্ন মামলায় নং ৪০৬/৪২০ অভিযুক্ত শ্রম অধিদপ্তরের পিয়ন মোজাম্মেল।

প্রতারণার এবং বিভিন্ন একাধিক মামলায় অভিযুক্ত থাকার কারণে আদালতে আসেন মোফাজ্জল। অফিস ফাঁকি দিয়ে কিছু দিন পর পর অফিসে মিথ্যা কথা বলে প্রতারণা করে । মোফাজ্জল ময়মনসিংহ জেলার ত্রিশাল উপজেলার সাখুয়া গ্রামের সরদার বাড়ির মরহুম আব্দুল আজিজ এর ২য় পুত্র। মোফাজ্জল আনুমানিক ৩০ বছর পূর্বে এই পিয়নের চাকরিতে জয়েন করেছেন। সে রাজধানী (ঢাকার) কাকরাইল শ্রম অধিদপ্তর অফিসের পিয়নের কাজ করেন। তার কর্মস্থল সূত্রে জানা যায় যে,, তার নিজ কর্মস্থলেই দূর্নীতি এবং প্রতারণার একাধিক অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে।

তিনি নিজে একজন সরকারি চাকুরীজিবী হয়ে বিভিন্ন ভুক্তভোগীর বিরুদ্ধে সে নিজেই বাদি হয়ে মিথ্যা মামলা দিয়েছেন ৯ থেকে ১০ জনের নামে । নিরপরাধ মানুষের কাছে থেকে প্রতারণা করে হাতিয়ে নিয়েছে অনেক টাকা। এছাড়াও জানা যায় যে মোফাজ্জল তার নিজ এলাকায় অন্যের জমি দখলও করেছেন। এবং একই জমি জাল কাগজের মাধ্যমে বারবার বিক্রি করেছেন এই মোফাজ্জল। এমনই প্রতারণা এবং দূর্নীতির কারণে একাধিক মামলা রয়েছেন তার বিরুদ্ধে। তার বিরুদ্ধে এক ভুক্তভোগীর কাছ থেকে জানা যায়।

গত কয়েকবছর আগে ত্রিশাল উপজেলার সাখুয়া গ্রাম অর্থাৎ তারই নিজ গ্রামের মোঃ মোস্তাফিজুর রহমানের পুত্র মোঃ নাজমুল হাসান এর কাছ থেকে জমি বিক্রয়ের কথা বলে অগ্রিম প্রায় ৪ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা একাধিক কিস্তির মাধ্যমে হাতিয়ে নিয়েছেন। ভুক্তভোগী নাজমুল হাসান এবং অভিযুক্ত মোফাজ্জল সম্পর্কে আপন চাচা-ভাতিজা হয়। যার কারণেই নাজমুল তার চাচা মোফাজ্জল কে বিশ্বাস করে অগ্রিম এতগুলো টাকা দিয়ে দেই। কিন্তু নাজমুল এর কাছথেকে ৪ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা নেওয়ার পরেও কথামতো জমি লিখে দেইনি মোফাজ্জল। মোফাজ্জল কে জমি সাব কাওলা দেওয়ার কথা বললে অভিযুক্ত মোফাজ্জল এবং তার স্ত্রী মোছাঃ শাহানাজ বেগম বিভিন্ন অযুহাত দেখায় এবং জমি সাব-কাওলা দিতে অস্বীকার করেন।

শেয়ার করুন

আরো দেখুন......