1. admin@dailyoporadhonusondhanltd.net : admin :
শিরোনামঃ
র‌্যাব-৭,চট্রগ্রাম’র অভিযানে আলোচিত ও চাঞ্চল্যকর গণধর্ষণ মামলায় “যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত” আসামি মোঃ সুমন গ্রেফতার।  বাঘায় মোটরসাইকেল আরোহী নিহত এক ,গুরুতর আহত দুই। আমতলীতে হিরন হত্যা মামলার প্রধান আসামি নয়ন মৃধা গ্রেপ্তার  সাজেকে কাচালং নদীতে ফুল ভাসানোর মধ্য দিয়ে বিঝু উৎসবের সুচনা পুলিশি তৎপরতা ও আন্তরিক ভূমিকায় মানসিক ভারসাম্যহীন (পাগল) মহিলার বাচ্চা প্রসবে সহযোগিতা । ভোটারদের টাকা দিতে বাঁধা দেওয়ায় ছুরিকাঘাতে চেয়ারম্যান সমর্থককে হত্যা। শেরপুর পুলিশ লাইন্সে পবিত্র ঈদুল ফিতরের জামাত অনুষ্ঠিত শিকড় ঝিনাইগাতীর উদ্যোগে ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্প, ইফতার ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত ঈদের শুভেচ্ছা জানালেন সেবক, কামরুজ্জামান (বাবলু কেন্দ্রীয় কৃষি ও সমবায় বিষয়ক উপ-কমিটির (সদস্য) জামালপুরের সানন্দবাড়ীতে অসকস বাংলাদেশের পক্ষ থেকে ঈদ সামগ্রী উপহার হতদরিদ্রদের

যৌতুকের টাকা জন্য প্রতিদিন নির্যাতন করতেছেন সাবিনা বেগমকে।

  • আপডেট সময়ঃ বৃহস্পতিবার, ২৩ মার্চ, ২০২৩
  • ৩১ জন দেখেছেন

রিয়াজ উদ্দিন, চট্টগ্রামের বন্দর থানাধীন ৩৮ নং ওয়ার্ড কমিশনার গলি মন্নান বিল্ডি এলাকায় সাবিনা বেগম নামে (৩০) বছরের একনারী  যৌতুকের টাকার জন্য প্রতিদিন নির্যাতন করছেন সাবিনা বেগমকে অভিযোগ উঠেছে স্বামী রিয়াদুল ইসলামের বিরুদ্ধে।

সাবিনা বেগম এর পিতা আব্দুল সালাম হাওলাদার,মাতা-মোছাঃ রোখসানা  বেগম,গ্রাম-নামাজপুর,থানা-পিরোজপুর

জেলা-পিরোজপুর।বর্তমান ঠিকানা,২ নং মাইলের মাথা কমিশনর গলি,মন্নান সওদাগরের বিল্ডিং এ সাবিনা বেগম এর বাবা দীর্ঘ ১৮ বছর এই বিল্ডিং এ বসবাস করে আসছে,বিগত ২০০৬ সালে সাবিনা বেগমের বিবাহ হয়,রিয়াদুল ইসলাম সাথে।

 

যৌতুকের এব্যাপারে সাবিনা বেগম সংবাদমাধ্যমকে বলেন,আমার স্বামী রিয়াদুল ইসলামের সাথে বিবাহ হয় ২০০৬ সালে,বিবাহের পর থেকে যৌতুকের টাকার জন্য প্রতিদিন নির্যাতন করে বিবাহের আগে থেকে আমি চাকরি করে করতেছি,বিবাহের পরে ও চাকরি করতেছি,যতদিন চাকরি করে টাকা দিতে পারলে আমার স্বামী রিয়াদুল ইসলাম ভালো থাকে।একমাস টাকা দিতে না পারলে আমাকে প্রায় সময় টাকার জন্য নির্যাতন করছে। টাকার জন্য আমাকে মাঝ রাতে মারধার শুরু করে।

 

তিনি আরো বলেন,প্রতিমাসে বেতনের টাকা নিয়ে আমার স্বামীর হাতে দিতাম একমাস চাকরি না করলে আমার স্বামী রিয়াদুল ইসলাম আমাকে দা দিয়ে টুকরো টুকরো করে কল্লাটা হালাই দিমু বলে আমাকে ভয় দেখায়,আমার স্বামীর এমন ব্যবহার দেখে আমি আমার স্বামীর কাছ থেকে আমার বাবার বাসায় ভয়ে চলে আসি।

 

তিনি বলেন,বিবাহের পরে ও আমার স্বামী আমার বিরুদ্ধে বিভিন্ন জায়গায় আমাকে নিয়ে বিচার শালিসি করে আমাকে ঘরে তুলে নেন,কিছু দিন ভালো থাকার পরে আবারো আমার বিরুদ্ধে বন্দর থানায় একটি অভিযোগ করেন,অভিযোগ করার পরে বন্দর থানা থেকে আমাকে ভালোমন্দ কথা বলে আবারো আমার স্বামীর সাথে  বাসায় পাঠিয়ে দেন।প্রায় তিনমাস ভালো থাকার পরে আবারো মানবাধিকারের অফিসে আমার বিরুদ্ধে একটি অভিযোগ করেন,অভিযোগ করার পরে আমার কাছ থেকে ৫ হাজার টাকা নিয়ে সমাধান করে দেন,মানবাধিকার এর অফিস থেকে বলেছিলেন এর পরে আর কোন মারধর করবেন না বলে মিলিয়ে দেন।

 

তিনি বলেন,গত ১২/০৩/২০২৩ ইং তারিখে আবারো আমার স্বামী রিয়াদুল ইসলামের নির্যাতনের শিকার হয়ে আমি আমার বাবার বাসায় চলে আসি আসার ৪দিন পরে আবারো বন্দর থানায় গিয়ে আমার বিরুদ্ধে একটি মিথ্যা অভিযোগে করেন আমার স্বামী রিয়াদুল ইসলাম।রিয়াদুল ইসলামের নির্যাতনের শিকারে আমি আমার সংসার ছাড়তে বাধ্য হয়েছি,আমি কোথাও গিয়ে কোন আইনের সহযোগিতা পাচ্ছি না।পরে চট্টগ্রাম বিজ্ঞ আদালতে গিয়ে মামলা করার প্রস্তুতি নিচ্ছি,বলে জানান এই ভুক্তভোগী সাবিনা।

 

সাবিনা ব্যাপারে রিয়াদুল ইসলামের মুঠোফোনে জানতে চাইলে তিনি বলেন,আমার স্ত্রী সাবিনা সেনিজে ইচ্ছাকৃত ভাবে আমার বাসা থেকে চলে যায়,সংসারের ভিতরে রান্নাবান্না নিয়ে একটু কথার কাটাকাটি হলে সে আমাকে উল্টা পাল্টা কথাবার্তা বলেন,আমি রাগ করে আমার স্ত্রী সাবিনাকে বলেছি,শিশু আয়াতের মত টুকরো টুকরো করে কল্লাটা হালাই দিমু বলে জানিয়েছি।

 

তিনি বলেন,এপযন্ত আমার স্ত্রীকে নিয়ে কয়েকবার বিচার শালিসি করেছি,বিচার করার পরে ও আমার স্ত্রী বাসা থেকে বের হয়ে জান,আমার স্ত্রীর বিরুদ্ধে আমি বন্দর থানায় গিয়ে একটি অভিযোগ  করেছি,বলে জানান রিয়াদুল ইসলাম।

শেয়ার করুন

আরো দেখুন......