1. admin@dailyoporadhonusondhanltd.net : admin :
শিরোনামঃ
শেখ ফজলুল হক মনি স্মৃতি সংসদ কর্তৃক আয়োজিত পিকনিক ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। বরগুনা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে সাংসদ গোলাম সরোয়ার টুকু’র শুভেচ্ছা বিনিময় চট্টগ্রামে আঞ্জুমান মফিদুল ইসলাম কে অ্যাম্বুলেন্স প্রদানে পিএইচপি ফ্যামিলি আমতলী পৌরসভা নির্বাচনে প্রতিক বরাদ্দ। বঙ্গলতলি বোধিপুর বন বিহারে ১০তম মহা সংঘদান উদযাপন শেরপুরে অপহরণ মামলার যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামী গ্রেপ্তার “পরিমার্জিত কারিকলম দক্ষতা অর্জনে শিক্ষক প্রশিক্ষণের বিকল্প নেই”-আদর্শ শিক্ষক ফোরামের শিক্ষক প্রশিক্ষণ সম্পন্ন- জাতীয় দৈনিক সমকালে ‘বড় বোঝা হৃদয়ের ছোট্ট কাঁধে’ শিরোনামে সংবাদ প্রকাশ ,পেলেন ভ্যানগাড়ী।। আমতলীতে গরুসহ চোর গ্রেপ্তার সিএমপি, পুলিশ কমিশনার মহোদয়ের ইপিজেড থানার দ্বিবার্ষিক পরিদর্শন সম্পন্ন।

কোটি টাকা মূল্যের সরকারি জায়গায় ডিসি সাহেবের নাম ভাঙিয়ে মার্কেট নির্মাণের অভিযোগ এক বৃত্তশালীর বিরুদ্ধে

  • আপডেট সময়ঃ বৃহস্পতিবার, ২ মার্চ, ২০২৩
  • ৪৪ জন দেখেছেন

ফকির মিরাজ আলী শেখ,বিশেষ প্রতিনিধি,গোপালগঞ্জ থেকে: গোপালগঞ্জের মুকসুদপুর উপজেলার জলিরপাড় ইউনিয়নের জলিরপাড় বাসস্ট্যান্ড সংলগ্ন ব্রোঞ্জ মার্কেটের পূর্বপাশে কোটি টাকা মূল্যের সরকারি জায়গায় মার্কেট  নির্মাণের অভিযোগ উঠেছে জলিরপাড় ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের বহিস্কৃত যুগ্মসাধারণ সম্পাদক, প্রভাবশালী টুলু (লিটন) বাগচি নামের এক ধনাঢ্য ব্যক্তির  বিরুদ্ধে। সে দক্ষিণ জলিরপাড় এলাকার মৃত-হরগোবিন্দ বাগচি  (পাখি)র ছেলে।

 

এবিষয়ে সরেজমিনে ওই এলাকায় গিয়ে বিপুলসংখ্যক শ্রমিকদের উক্ত মার্কেট নির্মাণে ব্যস্ত থাকতে দেখা যায়। পরে কে বাহ কারা মার্কেট নির্মাণ করছেন? জানতে চাইলে স্থানীয় এলাকাবাসী ও শ্রমিকরা জলিরপাড় ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের বহিস্কৃত যুগ্মসাধারণ সম্পাদক, প্রভাবশালী টুলু (লিটন) বাগচির নাম বলেন। সে স্থানীয় জলিরপাড় ইউপি চেয়ারম্যান মিহির কান্তি রায়ের ঘনিষ্ঠ লোক হওয়ায় এমনটি করতে পারেন বলে জানান তারা।

 

অভিযুক্ত টুলু (লিটন) বাগচির নিকট সরকারি জায়গায় মার্কেট নির্মাণে প্রশাসনের অনুমতির ব্যাপারে ….৬২৪ নম্বরের মুঠোফোনে জানতে চাইলে তিনি ডিসি সাহেব অনুমতি দিয়েছেন বলে সাংবাদিকদের সাথে দেখা করার আগ্রহ প্রকাশ করে সংযোগটি বিচ্ছিন্ন করেন।

 

নানা অনিয়মে অভিযুক্ত জলিরপাড় ইউনিয়ন ভূমি সহকারী কর্মকর্তা (তহশীলদার) এস এম রকিব উদ্দিনের নিকট বিষয়টি জানতে চাইলে তিনি মুকসুদপুর ইউএনও অফিসে যাওয়ার দোহাই দিয়ে বিকালে বিস্তারিত জানাবেন বলে জানান।

 

মুকসুদপুর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) অমিত কুমার সাহা এবিষয়ে কোন বক্তব্য না দিয়ে ইউএনও মহোদয়ের সাথে যোগাযোগ করতে বলেন।

 

মুকসুদপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার এস এম ইমাম রাজী টুলু বলেন, এখনই আইনগত ব্যবস্থা নিবো।

 

গোপালগঞ্জ জেলা প্রশাসক কাজী মাহবুবুল আলম এ বিষয়ে গণমাধ্যমকে জানান, সরকারি জায়গায় আমার নাম ভাঙিয়ে অবৈধভাবে মার্কেট নির্মাণের অভিযোগ আপনার নিকট থেকেই জানতে পেরেছি। এ ধরনের কোন সুযোগ নেই। তদন্ত সাপেক্ষে দ্রুতই আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

শেয়ার করুন

আরো দেখুন......