1. admin@dailyoporadhonusondhanltd.net : admin :
শিরোনামঃ
দক্ষিণ হালিশহরে একাডেমি কাপ ফুটবলের উদ্ধোধন: ট্রাইবেকারে পদ্মা-মেঘনা জয়ী ঝিনাইগাতীতে জাতীয় বীমা দিবস উপলক্ষে র‍্যালি ও আলোচনা সভা অনুষ্টিত ২০ রমজানের মধ্যে জাহাজ ভাঙ্গা শ্রমিকদের বেতন-বোনাস প্রদানের দাবি ফুটপাত দখলকারীরা কীভাবে বিদ্যুৎ পায়, প্রশ্ন মেয়র রেজাউলের, “নতুন কারিকুলামের চ্যালেঞ্জে অভিভাবকগণও সম্পৃক্ত”-ইপিজেড কর্ণফুলী মডেল স্কুলের অনুষ্ঠানে বক্তারা চট্টগ্রাম রিপোর্টার্স এসোসিয়েশন’র পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা হত্যাকান্ডে জড়িত আসামির স্বীকারোক্তি ভিডিও ভাইরাল; আদালতে হত্যা মামলা দায়ের র‌্যব-৭, চট্টগ্রাম’র অভিযানে, ফেনী এবং চট্টগ্রাম মহানগরীর বিভিন্ন স্থানে বিশেষ অভিযান পরিচালনা করে ৬টি কিশোর গ্যাং গ্রুপের প্রধানসহ আটক- ২৮ প্রধানমন্ত্রী নিজ হস্তে রাষ্ট্রপতি পদক পড়িয়ে দিলেন বাদলগাছী থানা অফিসার ইনচার্জ কে। প্রেসিডেন্ট পুলিশ মেডেল পদকে ভূষিত হলেন বরগুনার পুলিশ সুপার মোঃ আবদুস ছালাম

সাজেক পাহাড়ে জলবায়ু পরির্বতনের প্রভাব ও ভূগর্ভস্থ পানির সংকট

  • আপডেট সময়ঃ সোমবার, ১৩ ফেব্রুয়ারী, ২০২৩
  • ৮০ জন দেখেছেন

রুপম চাকমা বাঘাইছড়ি উপজেলা প্রতিনিধি সারা বিশ্বের মত পার্বত্য চট্টগ্রামও জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব মোকাবেলা করছে। তীব্র দাবদাহ ও ভূগর্ভস্থ খাবার পানির স্তর কমে যাচ্ছে। সাথে অনাবৃষ্টি ও খাদ্য সংকট প্রকট আকার ধারন করেছে। জলবায়ু চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় পাহাড়ে দিন দিন ব্যর্থ হচ্ছে। পাহাড় ভিত্তিক এনজিও গুলো যথা সাধ্য করে যাচ্ছে। তবে, যে এলাকা গুলো সবচেয়ে শিকার সেসব এলাকায়, লোকাল এনজিও গুলো পৌঁছাতে ব্যর্থ। ঢাকা এবং রাঙ্গামাটিতেই তারা সীমাবদ্ধ এতে করে বিদেশী সহায়তা সরাসরি জুমিয়াদের কাছে পৌছাচ্ছে না। অন্যদিকে, খাবার পানির সংকট এতই বড় আকার ধারন করেছে তা বিগত কয়েক দশকেও হয়নি। এক কলস পানির জন্য সারা রা অপেক্ষা করতে হয়। অনেক গ্রাম এখন মানুষ শূণ্য হচ্ছে শুধুমাত্র খাবার পানির সংকটের জন্য। এ সংকট শুধু এক এলাকায় সীমাবদ্ধ নেই আর, এটি সারা পার্বত্য চট্টগ্রামের সমস্যায় রুপান্তর হয়েছে। এর সাথে বনায়ন ধংব্বস এর আকার দুয়ে দুয়ে= চার যোগ করেছে। বন থেকে আসা উপরিভাগ পানির পরিমান কমে যাওয়ায়, নোংরা পানি বাধ্য হয়ে পান করতে হচ্ছে। এমন চিত্র রাঙ্গামাটিতে দেখা যায়। পাহাড়ে সেটলার কতৃক বনায়ন ধংববস ও পাথর উত্তোলন থেমে নেই। বিগত এক দশকে সেটলারদের তামাক,ইটভাটার জ্বালানী হিসেবে পাহাড়ি বন উজার করা হয়েছে। সাথে কর্ণফুলী কাগজ মিল এখনও নাড়াইছড়ির ফরেস্ট, কাচালং ফরেস্ট, সাজেক ফরেস্ট ও বিলাইছড়ির বিত্তৃন এলাকা থেকে খাচামাল হিসেবে বাঁশ বন উজার করছে। এতে সে এলাকার জীব বৈচিত্ত্য ও পানি সংকট চরম আকার ধারন করেছে। সরল পাহাড়ি মানুষ গুলো জীবন বাচাঁতে বনের গভীর থেকে আরো গভীরে যাচ্ছে। ফলে সংকট আরো ঘূণীভুত হচ্ছে। পাহাড়ে সামরিক ও রাজনৈতিক চাপে সরল জুমিয়ারা নরকের মত দিনাতি যাপন করছে। কোথায় গিয়ে এক ধন্ধ শান্তি মিলবে এসব সরল জুমিয়াদের? খাবার পানির সংকট নিয়ে সাজেক ইউনিয়নের বাঘাইহাট শুকনোছড়া বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক এলিন চাকমা বলেন আমরা চরম খাবার পানির সংকটে আছি এইভাবে চলতে থাকলে ভবিষৎতে আমাদের কে গ্রাম ছেরে অন্যত্র চলে যেতে হবে। খাবার পানির সংকটের বিষয়ে স্হানীয় ইউপি চেয়ারম্যানও উপজেলা কয়েকবার অবগত করা হলেও কোন সুফল হয়নি।

শেয়ার করুন

আরো দেখুন......