1. admin@dailyoporadhonusondhanltd.net : admin :
শিরোনামঃ
বাংলাদেশ সাংবাদিক ক্লাব, কেন্দ্রীয় স্হায়ী কমিটির পক্ষে,শহীদ মিনারে ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন।  অমর একুশে ফেব্রুয়ারি “আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ও শহীদ দিবস” উপলক্ষে গড়গড়ী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের বিনম্র শ্রদ্ধাঞ্জলি। রাজশাহীর বাঘায় যথাযথ মর্যাদায় মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত হয়েছে। যোগ্য ও দক্ষতার সাথে খোকা নতুন লুকে টেলিভিশনের পর্দায় আসার সম্ভাবনা। ঝিনাইগাতী শহীদ মিনারে ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন আমতলীতে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্প অনুষ্ঠিত আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো একুশে ফেব্রুয়ারি আমি কি ভুলিতে পারি, বাঘায় রুকুনুজ্জামান রিন্টু ভালুকায় একুশে প্রথম প্রহরে ভাষা শহীদের প্রতি প্রাথমিক শিক্ষক সমিতি’র শ্রদ্ধা- কালাইয়ে মহান শহীদ ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত

গদখালীর ফুল বাজারে প্রধান আকর্ষণ টিউলিপ ফুল

  • আপডেট সময়ঃ রবিবার, ৫ ফেব্রুয়ারী, ২০২৩
  • ৪৫ জন দেখেছেন

কামাল হোসেন, বিশেষ  প্রতিনিধিঃ জমে উঠেছে দেশের ফুলের রাজধানী খ্যাত যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলার গদখালীর ফুল বাজার।

 

প্রতি বছরের ন্যায় এ বছরও ভালোবাসা দিবস ও সহীদ দিবস উপলক্ষে, ব্যপক ফুল চাষ করেছে গদখালী এবং পানিসাড়া গ্রাম সহ ঝিকরগাছা উপজেলার প্রায় ১৭টি গ্রামের ফুল চাষিরা। এর মধ্যে গদখালী, পানিসাড়া, বল্লা, কানারআলী, ডুমরে, সিওরদা, আসিংড়ী, বাইশা উল্লেখযোগ্য।

 

আর এ বছরে ফুলের রাজ্যে ভিন্ন মাত্রা যোগ করেছে টিউলিপ ফুল। শীত প্রধান দেশের ফুল টিউলিপ এদেশে ফুটবে ভাবেনি কেউ! টিউলিপ ফুল বাংলাদেশে প্রথমে ঢাকার গাজীপুরে পরিক্ষামূলক ভাবে চাষ করা হয়, এরপরে দ্বিতীয় বারের মত, যশোরের গদখালীতে গত বছরে চাষ হয়েছিলো, তারই ধারাবাহিকতা বজায় রাখতে এবছরেও চাষ করা হয়েছে টিউলিপ। আর এই অসাধ্যকে সাধন করেছে পানিসাড়ার ফুল চাষি ইসমাইল হোসেন।

ইং সন মাস জানুয়ারী’র দ্বিতীয় সপ্তাহ থেকে তার বাগানে দোল খেতে সুরু করেছে বাহারী রঙের টিউলিপ ফুল। সারি সারি দোল খাওয়া টিউলিপের সু-ঘ্রান ও সৌন্দর্য উপভোগ করতে দূর দুরান্ত থেকে আসছে হাজার হাজার দর্শনার্থী। ফুল দেখতে আশা দর্শনার্থী বলেন, এই ফুলটি আমাদের দেশে প্রথম ফুটেছে তাই অতি আগ্রহের কারনে গদখালীতে আসা, আর এই কারনে প্রতিদিনি মানুষের ঢল নামছে ফুলের বাগান গুলোতে।

আর এই সুযোগে বাড়তি আয় করতে সক্ষম হচ্ছেন বাগান মালিকরা। বাগানে প্রবেশ করতে মাথাপিছু পর্যটকদের কাছ থেকে নেওয়া হচ্ছে ১০ থেকে ৫০ টাকা পর্যন্ত।

 

টিউলিপ চাষের বিষয়ে ইসমাইল

হোসেন বলেন, প্রথম বার পরিক্ষামূলক ভাবে টিউলিপ চাষ করলেও এখন বানিজ্যিক ভাবে চাষ করতে চেষ্টা করছি। তবে এদেশে ফুল ফুটলেও পরবর্তীতে ফুলচাষের জন্য বাল্ব সংরক্ষণের কোন ব্যবস্থা নেই। একটা নির্দিষ্ট তাপমাত্রায় টিউলিপের বাল্ব (টিউলিপের বিজ):সংরক্ষণ করতে হয়। এটা টিউলিপ চাষের বড় সমস্য।

 

বানিজ্যিক ভাবে টিউলিপ চাষের উদ্দেশ্যে বাংলাদেশের জলবায়ুর সাথে সামঞ্জস্য রেখে টিউলিপ ফুলের জাত উদভাবন করতে গবেশনা চলছে।

ফ্লওয়ার সোসাইটির সভাপতি জনাব আব্দুর রহিম, ফুল চাষকে আরও ব্যাপকতা ও বেগবান করতে সকলকে স্ব-ভূমিকা রাখার আহবান করেন।

শেয়ার করুন

আরো দেখুন......