1. admin@dailyoporadhonusondhanltd.net : admin :
শিরোনামঃ
ঘূর্ণিঝড় রেমালের আঘাতে ক্ষতিগ্রস্ত মংপ্রু মার্মার পরিবারের মানবেতর জীবনযাপন, আয়েরও কোন উৎস নেই ঝিনাইদহ চেক পোস্টে ২৭০ পিস ইয়াবাসহ মাদক ব্যবসায়ী আটক কালাইয়ে শেষ মুহূর্তে জমে উঠেছে পশুর হাট। *মানবিক কার্যক্রমের অংশ হিসেবে আসন্ন পবিত্র ঈদুল আযহা-২০২৪ উপলক্ষে ৫০ টি দুস্থ পরিবারের মাঝে উপহার সামগ্রী বিতরণ করেছে র‍্যাব-৭, চট্টগ্রাম।* এলজিইডি’র বাস্তবায়নে মুকসুদপুরের বিলচান্দা গ্রামের মানুষ শহরের সুবিধা পেতে চলেছে সাগরিকা ও হালিশহর বড়পুল মহেশখাল পাড়স্থ পশুর হাট পরিদর্শনে সিএমপি পুলিশ কমিশনার “সাংবাদিকতা সংক্রান্ত নেতিবাচক লেখাগুলো ফেসবুকে প্রচার বন্ধ হোক”- “সাইদুর রহমান রিমন”।  ঝিনাইগাতীতে মিলন হত্যার আসামী কাজল গ্রেফতার র‌্যাব-৭,চট্রগ্রাম’র অভিযানে নিষিদ্ধ জঙ্গি সংগঠন ‘আনসার আল ইসলাম’র সক্রিয় সদস্য কর্ণফুলী থানা এলাকা থেকে উগ্রবাদী পুস্তিকা সহ গ্রেফতার -০২।  সোনে মেরিনচর পাড়া প্রাথমিক ও নিন্ম মাধ্যমিক বিদ্যালয় আলীকদম উপজেলায় শিক্ষা ক্ষেত্রে অনন্য নিদর্শন

খুলনায় বিস্ফোরক মামলায় ০৮ আসামীকে খালাস প্রদান

  • আপডেট সময়ঃ বৃহস্পতিবার, ১ ডিসেম্বর, ২০২২
  • ৬২ জন দেখেছেন

মোঃ ইমানুর রহমান,জেলা প্রতিনিধি, খুলনা,

খুলনায় ০২ পু‌লিশ সদস‌্য হত‌্যার বি‌স্ফোরক মামলায় ০৮ আসা‌মি‌কে খালাস দি‌য়ে‌ছেন আদালত।

 

০১/১২/২০২২ বৃহস্পতিবার খুলনা মহানগর দায়রা জজ আদাল‌তের বিচারক মাহমুদা খাতুন এ রায় ঘোষণা ক‌রেন। রা‌য়ের বিষয়‌টি নি‌শ্চিত ক‌রে‌ছেন ওই আদাল‌তের রাষ্ট্রপ‌ক্ষের আইনজীবী কে এম ইকবাল হো‌সেন।

 

খালাসপ্রাপ্ত আসা‌মিরা হ‌ল, আব্দুর র‌শিদ মা‌লিথা তপন. মিলন, কামাল, বিপ্লব, শেখ শাহাদাৎ হে‌া‌সেন রাজু, আসাদুজ্জামান টিপু, একরাম হো‌সেন ও র‌ফিকুল ইসলাম মিল্টন।

 

আদালত সূত্র জানায়, ২০০৩ সালের ১১ মার্চ পুলিশ সদস্য শরীফুল, রমেশচন্দ্র, নিজাম উদ্দিন ও মনিরুজ্জামান নগরীর পাওয়ার হাউস মোড়ে দায়িত্ব পালন করছিলেন। সন্ধ্যা ৭ টা ৫০ মিনিটের দিকে কিছু বুঝে ওঠার আগেই দুর্বৃত্তরা তাদের ওপর বোমা নিক্ষেপ করে।

 

বোমার আঘাতে পুলিশ সদস্য মনিরুজ্জামানের পা শরীর থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। অপর দুই পুলিশ সদস্য গুরুতর আহত হন। তাদের অবস্থা মারাত্মক সংকটাপন্ন হয়ে পড়ে। এ সুযোগে দুর্বৃত্তরা রমেশ চন্দ্রের নামে সরকারি অস্ত্র শর্টগান ৯৭ মডেল ও ৭ রাউন্ড গুলি নিয়ে পালিয়ে যায়। পরবর্তীতে পুলিশ এসে তাদের উদ্ধার করে হাসপাতালে নিলে তাদের মধ্যে শরীফুল ও রমেশচন্দ্রকে মৃত ঘোষণা করেন চিকিৎসক।

 

এ ঘটনায় সোনাডাঙ্গা থানার এস আই আশরাফুল ইসলাম বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামা আসামিদের বিরুদ্ধে থানায় হত্যা ও বিস্ফোরক আইনে দু’টি পৃথক মামলা দায়ের করেন।

 

মামলায় তিনজন তদন্ত কর্মকর্তা পরিবর্তন হয়। সর্বশেষ ২০০৪ সালের ০৪ সেপ্টেম্বর এস আই অরবিন্দু বিশ্বাস আসামিদের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন।

 

দীর্ঘ দেড়যুগ পর আজ আলোচিত হত্যা মামলার রায় ঘোষণা করা হলো। এ মামলার ০৯ আসামির মধ্যে রিয়াজুল হক মাসুদ নামে এক আসামি মৃত্যুবরণ করেছেন। বাকী ০৮ আসামিকে খালাস দেওয়া হয়েছে।

 

যার মধ্যে রাজু কারাগারে ছিল, মিল্টন, টিপু ও মিলন জামিনে ছিলেন। এছাড়া একরাম, কামাল, বিপ্লব ও মালিথা পলাতক রয়েছে।

 

শেয়ার করুন

আরো দেখুন......