1. admin@dailyoporadhonusondhanltd.net : admin :
শিরোনামঃ
বাংলাদেশ সাংবাদিক ক্লাব, কেন্দ্রীয় স্হায়ী কমিটির পক্ষে,শহীদ মিনারে ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন।  অমর একুশে ফেব্রুয়ারি “আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ও শহীদ দিবস” উপলক্ষে গড়গড়ী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের বিনম্র শ্রদ্ধাঞ্জলি। রাজশাহীর বাঘায় যথাযথ মর্যাদায় মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত হয়েছে। যোগ্য ও দক্ষতার সাথে খোকা নতুন লুকে টেলিভিশনের পর্দায় আসার সম্ভাবনা। ঝিনাইগাতী শহীদ মিনারে ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন আমতলীতে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্প অনুষ্ঠিত আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো একুশে ফেব্রুয়ারি আমি কি ভুলিতে পারি, বাঘায় রুকুনুজ্জামান রিন্টু ভালুকায় একুশে প্রথম প্রহরে ভাষা শহীদের প্রতি প্রাথমিক শিক্ষক সমিতি’র শ্রদ্ধা- কালাইয়ে মহান শহীদ ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত

বন্দর-ইপিজেড,পতেঙ্গা-ডবলমুরিং-চান্দগাঁএলাকায় সমবায় সমিতির নামে কোটি কোটি টাকার প্রতারণার রমরমা ও জমজমাট বানিজ্য

  • আপডেট সময়ঃ শনিবার, ৫ নভেম্বর, ২০২২
  • ৯৮ জন দেখেছেন

ক্রাইম রিপোরাটার (চট্রগ্রাম বিভাগ):-.

আজ ৫১তম জাতীয় সমবায় দিবস: গ্রাহকের শত কোটি টাকা নিয়ে উধাও প্রতারক চক্র ক্ষমতার অপব্যবহার করে উদ্দমী

বিশেষ প্রতিবেদক::০৫নভেম্বর,চট্টগ্রাম

আজ৫১তম ‘জাতীয় সমবায় দিবস’। দিবসটির এবারের প্রতিপাদ্য নির্ধারণ করা হয়েছে ‘বঙ্গবন্ধুর দর্শন, সমবায়ের উন্নয়ন’। এ উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি আবদুলহামিদ বাণী প্রদান করেন।

বাণীতে রাষ্ট্রপতি বলেন, এবারের ৫১তম জাতীয় সমবায় দিবস পালনের যে প্রতিপাদ্য নির্ধারণ করা হয়েছে এটি অত্যন্ত সময়োপযোগী।

কারণ, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান গ্রাম সমবায়ের মাধ্যমে একটি স্বনির্ভর অর্থনীতি গড়ে তুলতে চেয়েছিলেন। তিনি সমবায়কে উন্নয়নের অন্যতম প্রায়োগিক পদ্ধতি হিসেবে বিবেচনা করেছিলেন। সেই লক্ষ্যেই গ্রামে-গ্রামে বহুমুখী কো-অপারেটিভ গড়ার আহ্বান জানিয়েছিলেন। বঙ্গবন্ধু সমবায়ের আদর্শে দেশের উৎপাদন ব্যবস্থা তৈরি করে সাধারণ মানুষের স্বনির্ভরতা অর্জনের মাধ্যমে দেশের সামগ্রিক উন্নয়নের স্বপ্ন দেখেছিলেন।

রাষ্ট্রপতি আরোও বলেন, বর্তমান সরকার ক্ষুধা, দারিদ্র্য, বৈষম্য ও দুর্নীতিমুক্ত সুখী-সমৃদ্ধ উন্নত বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে নানামুখী উন্নয়ন পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে। সরকার সমবায়ের মাধ্যমে কৃষি জমি ও অন্যান্য সম্পদের সর্বোত্তম ব্যবহারের মাধ্যমে কর্মসংস্থান সৃষ্টি, খাদ্য ও পুষ্টি চাহিদা পূরণে ব্যাপক কার্যক্রম নিয়েছে। দারিদ্র্য বিমোচন ও নারীর ক্ষমতায়নের লক্ষ্যে বিপুল সংখ্যক গ্রামীণ দরিদ্র জনগোষ্ঠীকে ক্ষুদ্র ঋণ, আয়বর্ধকমূলক প্রশিক্ষণ ও উপকরণসহ বিভিন্ন সহায়তা প্রদান করা হচ্ছে।

নগরীর চান্দগাঁও শমসের পাড়া এলাকায় গ্লোরী মাল্টিপারপাস কো-অপারেটিভ সোসাইটি লি: কার্যক্রম শুরু হওয়ার মাত্র ১ বছরের মাথায় নিবন্ধন লাভ করে সরকারের সমবায় অধিদপ্তরের। নিবন্ধন পাওয়ার পরপরই ব্যাপক আলোড়ন সৃষ্টিতে গ্রাহক সংগ্রহ করে সমিতির পরিধি বৃদ্ধি করতে শুরু করেন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা। তাতে সাড়াও মেলে। বাড়তে থাকে সমিতির সদস্যের সংখ্যাও। কার্যক্রম শুরু হওয়ার পর দেনা-পাওনা নিয়ে তেমন কোনো অভিযোগও ছিল না। কিন্তু প্রায় বছর ২/১ আগ থেকেই শুরু হয় নানান ছল-চাতুরী। এরমধ্যে চলতি বছরের জুলাই মাসে বেরিয়ে আসে গ্লোরীর আসল রহস্য। সাধারণ গ্রাহকের কয়েক কোটি টাকা নিয়ে হঠাৎই উধাও সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা। বন্ধ হয় অফিসের কার্যক্রমও।

শুধু গ্লোরী মাল্টিপারপাসই নয়। একই থানাধীন কাপ্তাই রাস্তার মাথায় গড়ে উঠা প্রাইম স্টার কো-অপারেটিভ সোসাইটি নামে আরেক সমবায় সমিতিও জুলাই মাসে শত কোটি টাকা নিয়ে লাপাত্তা হয়। আর টাকা ফেরত পেতে রাস্তায় নামেন সমিতির সাধারণ গ্রাহকরা।

প্রাইম স্টারের মতো হঠাৎই লাপাত্তা হয় নগরীর বন্দর থানাধীন মধ্যম হালিশহরের ১নং সাইটের হিন্দু পাড়ার শ্যামা বহুমুখী সমবায় সমিতি। একই পাড়াতে গড়ে উঠা অন্তত আরও ১০-১২টির অধিক সমিতি  উধাও বিভিন্ন সময়ে। আশ্চর্য্যরে বিষয় হচ্ছে- গ্রাহকের কোটি কোটি টাকা নিয়ে সমিতির কার্যক্রম বন্ধ হলেও এ নিয়ে কোন ‘মাথা ব্যথাই‘ নেই খোদ দায়িত্বশীল বিভাগ সমবায় অধিদপ্তরের।

গ্রাহকের টাকা ফেরত আনার বিষয়েও তোমন কোন কার্যকরি উদ্যোগ গ্রহণ করতে দেখা যায়নি এই নিয়ন্ত্রক সংস্থাকে। শুধু চিঠি চালা চালিতেই দায়িত্ব শেষ করে তারা। অভিযোগ রয়েছে- বছর বছর অডিট এর সময় এসব সমিতির ফান্ড নিয়ে ধোঁয়াশা তৈরি হলেও তাতে কোন প্রকার বাধা দেননি সমবায় অধিদপ্তরের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা। যে কারণে সমিতিগুলো গ্রাহকের টাকা মেরে পালিয়ে যাওয়ার সুযোগ পায়।

তথ্য মতে জানা গেছেযে, গত২/১ বছরে সমবায় অধিদপ্তরের নিবন্ধন নিয়ে চট্টগ্রামে কার্যক্রম চালিয়ে আসা ১৩/১৫টির বেশি সমবায় সমিতির একই পরিণতি ঘটে। গ্রাহকের হাজার কোটি টাকা মেরে উধাও হলেও এ টাকা ফেরতের বিষয়ে তেমন কোন ভূমিকাই গ্রহণ করতে দেখা যায়নি সমবায় অধিদপ্তরকে। কিংবা গ্রাহকের টাকা ফেরত পাওয়ার বিষয়েও উদ্যোগ নিতে দেখা যায়নি। আর সমবায়ের এমন ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন সচেতন মহল।

যদিও সমবায় অধিদপ্তরের পক্ষ থেকে জোর দাবি করা হচ্ছে, অনিয়ম আর ত্রুটি পেলেই ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়।

সচেতন মহল বলছেন- এসব প্রতিষ্ঠানকে আইনের আওতায় এনে তাদের সব ধরনের সম্পত্তি কিংবা অর্থ বাজেয়াপ্ত করে গ্রাহকের হাতে তুলে দেওয়ার পাশাপাশি কঠিন শাস্তির ব্যবস্থা করা গেলে ভবিষ্যতে এ ধরনের প্রতারণা করতে কেউ সাহস পাবে না।

চট্টগ্রাম জেলা সমবায় অফিসার মুরাদ আহম্মেদ বলেন, কিছু অসাধু ব্যক্তি সমবায় সমিতির নামে গ্রাহকের টাকা মেরে দিচ্ছেন। তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে আমরা মন্ত্রণালয়কে জানিয়েছি। তিনি বলেন, চট্টগ্রামে নতুন যাদের নিবন্ধন দেওয়া হচ্ছে- তাদের কঠোর শর্ত দেওয়া হচ্ছে। নজরদারির মধ্যে রাখা হচ্ছে। শর্ত ভঙ্গ করলেই নিবন্ধন বাতিল করা হচ্ছে।

এছাড়া ডবলমুরিং থানাস্থ মুনসুরাবাদ এলাকার লিডা নামের একটি প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধেু গ্রাহকের অভিযোগ দুদকে সহ বিভিন্ন থানায় জিডি, অভিযোগ ওমামলা করেছেন একাধিক গ্রাহক। ঐ প্রতিষ্ঠানের পরিচালক মোঃ শরিফ ও তার স্ত্রী মরিয়মের নামে শতশত কোটি টাকা নিয়ে নয়-ছয়ের বিশাল অভিযোগ পাওয়া গেছে।

বন্দরের প্রাইম স্টার,সততা ফাইন্ডেশন,বন্ধু কর্মজীবী সমিতি,একতা কল্যান সমিতি,ইপিজেডের আলোচিত রূপসা মাল্টি-পারপাস সমিতি,প্রত্যাশা সমবায়, প্রাইম স্টার সঞ্চয় কো-অপারেটিভ লিঃ,পতেঙ্গার বেশ কয়েকটি মাল্টি-পারপাস সমবায় সমিতির কর্মকর্তারা শতশত কোটি টাকা নিয়ে বছরের ২/১এর মধ্যে উধাও হলেও কার্য্যত কোন সুবিধায় পাইনি ভুক্তভোগি গ্রাহকরা।

অত্যন্ত পরিতাপের ব্যাপার যে,ইপিজেডের আলোচিত রূপসা মাল্টি-পারপাস সমিতির একাধিক মালিক/পরিচালক ওকর্মকর্তারা প্রশাসনে আটক হলেও গ্রাহকরা তাদের জমাকৃত আমানত এখনো ফেরত পাইনি। উল্টো বাক-প্রতিবাদ জানিয়ে প্রতিষ্টান ঘেরাও করতে গেলে স্থানীয় সরকার দলীয় নেতা-কর্মীদের দাপট দেখিয়ে  ভুক্তভোগি গ্রাহকদের কে থানা পুলিশ-র্যা ব দিয়ে প্রতিহতের মুখে পড়তে হয়েছে বলে একাধিক গ্রাহক অভিযোগ করেন।

এদিকে সম্প্রতি সময়ে প্রায় ৫০টির অধিক মামলায় পরোয়না সহ রূপসার প্রধান পরিচালক মজিবুর রহমান কোং ঢাকা থেকে ডিবি পুলিশের মাধ্যমে ইপিজেড থানা পুলিশ আটক করেছেন বলে জানিয়েছেন।

শেয়ার করুন

আরো দেখুন......